চট্টগ্রামেও স্বপ্ন ডানা মেলছে

0
40
-

mushfiqক্রীড়া প্রতিবেদক, ঢাকা: স্বপ্ন সে তো বাধা মানে না। ঢাকা থেকে চট্টগ্রামে মুশফিকুর রহীমের দল পাড়ি জমিয়েছে আরও বড় স্বপ্ন নিয়ে। এই স্বপ্ন কি সেটি আর বলতে হয় না! বাংলাদেশ অধিনায়কই ম্যাচপূর্ব সংবাদ সম্মেলনের আগে সাফ বলে দিয়েছেন, ড্র নয়, তাঁর চাই জয়। আর এটি হলে বাংলাদেশের ক্রিকেট ইতিহাসে সবচেয়ে বড় অর্জনই হবে। তাহলে সাধারণ ক্রিকেটপ্রেমীদের স্বপ্ন বড় তো হবেই।

প্রথম দিন শেষে আপাতদৃষ্টিতে মনে হচ্ছে, বাংলাদেশের স্বপ্নের সীমা বাড়ছে। দিন শেষে বাংলাদেশ স্কোরবোর্ডে তুলেছে ২৫৩ রান। ৬২ রানে মুশফিকুর আর নাসির হোসেন ১৯ রান নিয়ে ব্যাট করছেন। হাতে ৪ উইকেট নিয়ে দ্বিতীয় দিনে বাংলাদেশ কত রান যোগ করতে পারে এখন সেটাই দেখার।

জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে দিনের শুরুতেই সেই স্বপ্নের পথে হাঁটতে গিয়ে বড়সড় ধাক্কা খায় বাংলাদেশ তামিম ইকবালকে (৯) হারিয়ে। সিরিজ শুরুর আগেই নাথান লায়নকে বড় হুমকি মনে করেছিলেন বাঁ-হাতী ওপেনার। মিরপুরের পর লায়ন চট্টগ্রামেও তা প্রমাণ করলেন। এলবিডব্লু হয়ে তাঁর প্রথম শিকার তামিমই।

প্রথম টেস্টের দুইনিংসেই ফিফটির দেখা পাওয়া তামিমের বিদায়ের পর মনে হচ্ছিল, এবার বুঝি আগের টেস্টের ব্যর্থতা ঘোচাবেন ইমরুল কায়েস। ২১ রানে তিনিও বিদায় নিলেন সেই লায়নের বলেই এলবিডব্ল হয়ে মাত্র ৯ রান করে। ততক্ষণে সৌম্য সরকারকে বেশ সাবলিল মনে হচ্ছিল। যাকে নিয়ে মহাবিতর্ক তৈরি হয়েছিল সেই মুমিনুল হকও দেখেশুনে খেলছিলেন। দুজনে মিলে তৃতীয় উইকেটে ৪৯ রান যোগ করেন। ৭০ রানে এ জুটিকেও বিচ্ছিন্ন করেন সেই লায়ন। সৌম্যও (৩৩) এলবিডব্ল’র ফাঁদে পড়লেন। খানিকবাদে মুমিনুলও(৩১) এলবিডব্লু হন লায়নেরই বলে।

৮৫ রানে ৪ উইকেট হারিয়ে হঠাতই এলোমেলো বাংলাদেশ। এখান থেকে মুশফিক-সাকিব চেষ্টা করেছেন দলকে টেনে তোলার। বড় জুটি গড়ার আগেই অ্যাশটন অ্যাগারের বলে উইকেটের পেছনে ম্যাথু ওয়েডকে ক্যাচ দিয়ে বসেন সাকিব(২৪)।

এর পরই মুশফিক সাব্বিরকে নিয়ে ঘুরে দাঁড়িয়েছেন।তারা যোগ করে ষষ্ঠ উইকেটে দুজনে মিলে ছেন ১০৫ রান।২২২ রানে দূর্ভাগ্যবশত স্ট্যাম্পিংয়ের ফাঁদে পড়েন সাব্বির। যদিও রিপ্লে দেখা যাচ্ছিল, তাঁর পা লাইন থেকে ওঠেনি। তারপরও থার্ড আম্পায়ার আলিম দার আউট দিয়ে দিলেন সাব্বিরকে। ফলে ৬৬ রানেই থামতে হয় তাকে। সাব্বির এই ইনিংসটি খেলেছেন ১১৩ বলে ছয় চার আর এক ছক্কায়।

তবে দিনের বাকি সময়টুকুতে আর কোনও বিপদ আসতে দেন মুশফিক-নাসির। দিন শেষে মুশফিক ৬২ এবং নাসির ১৯ রান নিয়ে অপরাজিত আছেন। মুশফিক তাঁর এই ইনিংসটি সাজিয়েছেন ১৪৯ বলে পাঁচ চারের সাহায্যে। ৭৭ রানে ৫ উইকেট তুলে নিয়েছেন নাথান লায়ন।


-

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here