করোনার ধাক্কায় বস্ত্র খাতের ১৬ কোম্পানিতে মুনাফায় ধস

   June 8, 2021

দেশ প্রতিক্ষণ, ঢাকা: পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত বস্ত্র খাতের ১৬ কোম্পানিতে করোনার ধাক্কা লেগেছে। গত বছরের একই সময়ের তুলনায় কোম্পানিগুলোর আয় কমেছে। কোম্পানিগুলো হলো: অলটেক্স ইন্ডাস্ট্রিজ, দুলামিয়া কটন স্পিনিং মিলস, এনভয় টেক্সটাইলস, ইস্কয়ার নিট কম্পোজিট, ফারইস্ট নিটিং এন্ড ডাইং ইন্ডাস্ট্রিজ, হামিদ ফ্যাব্রিক্স, কাট্টালী টেক্সটাইল, নুরানী ডায়িং এন্ড সুয়েটার, প্রাইম টেক্সটাইল স্পিনিং মিলস, প্যারামাউন্ট টেক্সটাইল, রিজেন্ট টেক্সটাইল, শেফার্ড ইন্ডাস্ট্রিজ, সিমটেক্স ইন্ডাস্ট্রিজ, সোনারগাঁও টেক্সটাইলস, জাহিন স্পিনিং এবং জাহিন টেক্স ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড।

করোনার নেতিবাচক পরিস্থিতির কারণে তৃতীয় প্রান্তিকে এসব কোম্পানির আয় কমেছে। এর মধ্যে কিছু কোম্পানি আয় থেকে লোকসানে চলে গেছে। আবার কিছু কোম্পানির লোকসানের পাল্লা ভারি হয়েছে। চলতি মাসেই এসব কোম্পানির ইয়ার ক্লোজিং হবে। আয় কমা ও লোকসান হওয়া কোম্পানিগুলো থেকে ডিভিডেন্ড পাওয়া নিয়ে দু:চিন্তায় রয়েছে বিনিয়োগকারীরা।

গত বছরের মার্চের শেষে দেশজুড়ে লকডাউন ঘোষণা করা হয়। ওই সময় বন্ধ থাকে সরকারী-বেসরকারি সব ধরণের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। উৎপাদন বন্ধ থাকায় কোম্পানিগুলো থেকে কর্মীও ছাঁটাই করা হয়। একই সাথে কর্মরত কর্মীদের বেতন-ভাতাও কমানো হয়। দীর্ঘদিন পর পরিস্থিতি কিছুটা স্বাভাবিক হলে শিল্প কারখান খুলতে থাকে। কিন্ত পুরোপুরি স্বাভাবিক পরিবেশ ফিরে না আসায় সেভাবে মুনাফা করতে পারেনি অনেক কোম্পানি। বিশেষ করে গার্মেন্টস সেক্টরে সবচেয়ে নেতিবাচক পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। করোনার কারণে বিদেশি ক্রেতারা মুখ ফিরিয়ে নেয় বস্ত্র খাত থেকে। বাতিল হয়ে যায় অনেক অর্ডার। যার প্রভাবে বস্ত্র খাতের কোম্পানিগুলোর মুনাফায় নেতিবাচক প্রভাব পড়ে।

নিচে কোম্পানিগুলোর আর্থিক প্রতিবেদন তুলে ধরা হলো: অলটেক্স ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড : তৃতীয় প্রান্তিকে শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ১ টাকা ৮৩ পয়সা। গত বছর একই সময়ে লোকসান হয়েছিল ১ টাকা ৩৬ পয়সা। অর্থাৎ গত বছরের তুলনায় লোকসান বেড়েছে ৩৬ পয়সা। প্রথম তিন প্রান্তিকে শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ৪ টাকা ১১ পয়সা,যা গত বছর ছিল ৪ টাকা ২৫ পয়সা। লোকসান কমেছে ১৪ পয়সা।

দুলামিয়া কটন স্পিনিং মিলস লিমিটেড :তৃতীয় প্রান্তিকে শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ১৩ পয়সা। গত বছর একই সময়ে লোকসান দিয়েছিল ১৫ পয়সা। অর্থাৎ গত বছরের তুলনায় লোকসান কমেছে ০২ পয়সা। প্রথম তিন প্রান্তিকে শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ৪৬ পয়সা। গত বছর একই সময়ে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি লোকসান ছিল ৪৫ পয়সা। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় লোকসান বেড়েছে ০১ পয়সা।

এনভয় টেক্সটাইলস লিমিটেড :তৃতীয় প্রান্তিকে শেয়ার প্রতি আয় হয়েছে ২১ পয়সা। গত বছর একই সময়ে কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় হয়েছিল ৯১ পয়সা। অর্থাৎ গত বছরের তুলনায় তুলনায় আয় কমেছে ৭০ পয়সা। প্রথম তিন প্রান্তিকে শেয়ার প্রতি আয় হয়েছে ৫৮ পয়সা, গত বছর যা ছিল ২ টাকা ০৬ পয়সা। অর্থাৎ গত বছরের তুলনায় আয় কমেছে ১ টাকা ৪৮ পয়সা।

এস্কোয়ার নিট কম্পোজিট লিমিটেড :তৃতীয় প্রান্তিকে শেয়ার প্রতি আয় হয়েছে ৬৯ পয়সা। গত বছর একই সময়ে কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় হয়েছিল ৮৬ পয়সা। অর্থাৎ গত বছরের তুলনায় আয় কমেছে ১৭ পয়সা। প্রথম তিন প্রান্তিকে শেয়ার প্রতি আয় হয়েছে ১ টাকা ৮৩ পয়সা। গত বছর আয় হয়েছিল ২ টাকা ৪০ পয়সা। অর্থাৎ গত বছরের তুলনায় আয় কমেছে ৫৭ পয়সা।

ফারইস্ট নিটিং এন্ড ডাইয়িং ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড :তৃতীয় প্রান্তিকে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ২০ পয়সা। গত বছর একই সময়ে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় ছিল ২২ পয়সা। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় আয় কমেছে ০২ পয়সা।

অন্যদিকে, প্রথম তিন প্রান্তিকে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৩৩ পয়সা। গত বছর একই সময়ে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ৩৪ পয়সা। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় আয় কমেছে ০১ পয়সা।

অন্যদিকে, প্রথম তিন প্রান্তিকে শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ০৩ পয়সা। গত বছর একই সময়ে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ২৩ পয়সা। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় লোকসান কমেছে ০৩ পয়সা।

হামিদ ফ্যাব্রিক্স লিমিটেড :তৃতীয় প্রান্তিকে শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ৩৪ পয়সা। গত বছর একই সময়ে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ১২ পয়সা। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় মুনাফা কাটিয়ে লোকসান হয়েছে ৩৪ পয়সা। অন্যদিকে, প্রথম তিন প্রান্তিকে শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ১ টাকা ৩১ পয়সা। গত বছর একই সময়ে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ৭২ পয়সা। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় লোকসান হয়েছে ১ টাকা ৩১ পয়সা।

কাট্টালী টেক্সটাইল লিমিটেড : তৃতীয় প্রান্তিকে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ২৯ পয়সা। গত বছর একই সময়ে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় ছিল ৪৬ পয়সা। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় আয় কমেছে ১৭ পয়সা। অন্যদিকে, প্রথম তিন প্রান্তিকে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৯০ পয়সা। গত বছর একই সময়ে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ১ টাকা ৪০ পয়সা। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় আয় কমেছে ৫০ পয়সা।

নুরানী ডায়িং এন্ড সুয়েটার লিমিটেড :তৃতীয় প্রান্তিকে শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ২৮ পয়সা। গত বছর একই সময়ে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি লোকসান ছিল ৬৯ পয়সা। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় লোকসান কমেছে ৪১পয়সা। অন্যদিকে, প্রথম তিন প্রান্তিকে শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ৯৫ পয়সা। গত বছর একই সময়ে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি লোকসান ছিল ৪২ পয়সা। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় লোকসান বেড়েছে ৫৩ পয়সা।

প্রাইম টেক্সটাইল স্পিনিং মিলস লিমিটেড :তৃতীয় প্রান্তিকে শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ৩৯ পয়সা। গত বছর একই সময়ে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি লোকসান ছিল ০২ পয়সা। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় লোকসান বেড়েছে ৩৭ পয়সা। অন্যদিকে, প্রথম তিন প্রান্তিকে শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ২ টাকা ১২ পয়সা। গত বছর একই সময়ে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ০৬ পয়সা। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় লোকসান বেড়েছে ২ টাকা ১২ পয়সা।

প্যারামাউন্ট টেক্সটাইল লিমিটেড : তৃতীয় প্রান্তিকে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৯৭ পয়সা। গত বছর একই সময়ে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ১ টাকা ১৫ পয়সা। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় আয় কমেছে ১৮ পয়সা। অন্যদিকে, প্রথম তিন প্রান্তিকে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৩ টাকা ৪০ পয়সা। গত বছর একই সময়ে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ৩ টাকা ৬৪ পয়সা। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় আয় কমেছে ২৪ পয়সা।

রিজেন্ট টেক্সটাইল লিমিটেড : তৃতীয় প্রান্তিকে শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ৪৬ পয়সা। গত বছর একই সময়ে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ১৪ পয়সা। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় লোকসান হয়েছে ৪৬ পয়সা। অন্যদিকে, প্রথম তিন প্রান্তিকে শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ৯২ পয়সা। গত বছর একই সময়ে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ৩৪ পয়সা। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় লোকসান হয়েছে ৯২পয়সা।

শেফার্ড ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড : তৃতীয় প্রান্তিকে শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ২১ পয়সা। গত বছর একই সময়ে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ০৮ পয়সা। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় লোকসান হয়েছে ২১ পয়সা। অন্যদিকে, প্রথম তিন প্রান্তিকে শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ৭৯ পয়সা। গত বছর একই সময়ে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ৪১ পয়সা। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় লোকসান হয়েছে ৭৯ পয়সা।

সিমটেক্স ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড :তৃতীয় প্রান্তিকে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০৬ পয়সা। গত বছর একই সময়ে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় ছিল ২৪ পয়সা। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় আয় কমেছে ১৮ পয়সা। অন্যদিকে, প্রথম তিন প্রান্তিকে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৭৬ পয়সা। গত বছর একই সময়ে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ১ টাকা ১৯ পয়সা। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় আয় কমেছে ৪৩ পয়সা।

সোনারগাও টেক্সটাইলস লিমিটেড :তৃতীয় প্রান্তিকে শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ৪১ পয়সা। গত বছর একই সময়ে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ০৪ পয়সা। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় লোকসান হয়েছে ৪১ পয়সা। অন্যদিকে, প্রথম তিন প্রান্তিকে শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ১ টাকা ২৯ পয়সা। গত বছর একই সময়ে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ৩৭ পয়সা। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় লোকসান হয়েছে ১ টাকা ২৯ পয়সা ।

জাহিন স্পিনিং লিমিটেড : তৃতীয় প্রান্তিকে শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ১ টাকা ৩৯ পয়সা। গত বছর একই সময়ে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ০২ পয়সা। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় লোকসান হয়েছে ১টাকা ৩৯ পয়সা। অন্যদিকে, প্রথম তিন প্রান্তিকে শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ১ টাকা ৩৭ পয়সা। গত বছর একই সময়ে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি লোকসান ছিল ৭৬ পয়সা। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় লোকসান বেড়েছে ৬১ পয়সা ।

জাহিন টেক্স ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড : তৃতীয় প্রান্তিকে শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ১ টাকা ২২ পয়সা। গত বছর একই সময়ে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি লোকসান ছিল ১ টাকা ৩৩ পয়সা। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় লোকসান হয়েছে ১১ পয়সা। অন্যদিকে, প্রথম তিন প্রান্তিকে শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ২ টাকা ৫২ পয়সা। গত বছর একই সময়ে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি লোকসান ছিল ২ টাকা ২২ পয়সা। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় লোকসান বেড়েছে ৩০ পয়সা।

পুঁজিবাজারের লেনদেন ৩০ গুণ বেড়েছে:  আওয়ামীলীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পর পুঁজিবাজারের লেনদেন ৩০ গুণ বেড়েছে বলে মন্তব্য করেছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মোস্তফা কামাল। তিনি বলেন, ‘পুঁজিবাজার কেমন করে বসে গেল? পুঁজিবাজারে হয়তো লেনদেন নেই। পুঁজিবাজার সম্পর্কে তথ্য রাখেন না, হয়তো সেজন্য বলছেন। যদি ডাটা দেখি, যখন ক্ষমতায় আসি তখন পুঁজিবাজারে লেনদেন এক লাখ ৪ হাজার কোটি টাকা ছিল। তা এখন পাঁচ গুণ বেড়েছে।

গড় লেনদেন ছিল দৈনিক ২৮ কোটি টাকা যা এখন ৩০ গুণ বেড়েছে। তাহলে ধসে গেল কেমন করে?’ গতকাল সোমবার (৭ জুন) সংসদে মঞ্জুরি দাবির পরিপ্রেক্ষিতে ছাঁটাই প্রস্তাব তোলার সময় বিভিন্ন সংসদ সদস্যের সমালোচনার পর মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

বিদেশে পাচার হয়ে যাচ্ছে দেশের টাকা-বিরোধীদলের সংসদ সদস্যদের এমন অভিযোগের পর অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেছেন, ‘নামগুলো আমাদের দেন। কাজটি করলে আমাদের জন্য সহজ হবে। এখনো অনেকেই জেলে আছে। বিচার হচ্ছে। আগে যেমন ঢালাওভাবে চলে যেত, এখন তেমন নেই। কারা টাকা নিয়ে যায়, লিস্ট আমার কাছে নেই।’

এর আগে মঞ্জুরি দাবির পরিপ্রেক্ষিতে ছাঁটাই প্রস্তাব তোলার সময় বিএনপির সাংসদ হারুনুর রশীদ বলেন, ‘স্কুলে অংকে ভালো ছিলাম। শিক্ষকরা আদর করতেন। কিন্তু বাজেটের অংকের হিসাব মেলাতে পারছি না। ঘাটতি কোথায়? কোথা থেকে টাকা আনব? প্রবৃদ্ধির কথা বলছি। করোনাকালীন সবচেয়ে গুরুত্ব দিতে হবে করোনা নিয়ন্ত্রণে। না হলে প্রবাস আয়, গার্মেন্টর খাত ক্ষতিগ্রস্ত হবে। প্রবৃদ্ধির জন্য লাফাচ্ছি।

সূচের ফোটা দিলে বেলুনের মতো চুপসে যাবে। করোনা নিয়ন্ত্রণ না হলে গার্মেন্টস আর প্রবাসী আয় কমে যাবে। করোনা নিয়ন্ত্রণ না করলে ভয়ানক ধস নামবে। শেয়ারবাজার শুয়ে গেছে একেবারে। আর্থিক প্রতিষ্ঠানৃসত্য কথা বললে সরকারি দলের সদস্যরা বেজার হয়ে চিল্লাচিল্লি করবেন।

দুর্নীতির কারণে আর্থিক খাত ক্ষতিগ্রস্ত। প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা জিরো টলারেনন্স। অর্থমন্ত্রী বললেন, অপ্রদর্শিত আয় নিয়ে। এটা সাংঘর্ষিক। দুর্নীতি, মাদক, অর্থআত্মসাতের মাধ্যমে বিত্ত গড়ে তুললে তাকে সুযোগ দিয়ে ন্যায় করা হবে না। বেহাল দশা থেকে জাতি থেকে মুক্ত করতে হলেৃকরোনাকালীন সময়ে দ্রুত নিয়ন্ত্রণ করতে হবে। মেগা প্রকল্প বাদ দেন।’

বিএনপির আরেক সংসদ সদস্য রুমিন ফারহানা বলেন, ‘যখনই আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসে, শেয়ারবাজার শুয়ে পড়ে। ৯৬ সালে, ২০০৯ সালে শুয়ে পড়লো। তৎকালীন অর্থমন্ত্রী বললেন, তিনি শেয়ারবাজার বোঝেন না। শেয়ার বাজার ফটকা বাজার। সেই অর্থমন্ত্রী স্পষ্ট কথা বলতেন, দলের বিপক্ষে গেলেও বলতেন। ব্যাংক কোম্পানি আইন সংশোধন করে পরিবারের হাতে ব্যাংক তুলে দেয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে। জনগণের টাকার হরিলুট হচ্ছে।

সংসদে ঋণ খেলাপির তালিকা দেয়া হলো। ৩০০ জন। তাদের বিরুদ্ধে কী ব্যবস্থা নেয়া হলো? বিদেশে ১ লাখ কোটি টাকার ওপরে চলে যাচ্ছে। ওভার আর আন্ডার ইনভয়েসিংয়ের মাধ্যমে যাচ্ছে। এর বাইরে হুন্ডির পরিমাণ ধরলে আল্লাহ মাবুদ জানেন কত টাকা বিদেশে গেছে!’

জাতীয় পার্টির কাজী ফিরোজ রশীদ বলেন, ‘আর্থিক খাতে অর্থমন্ত্রীর নেতৃত্ব সঠিক। কর্তৃত্ব দুর্বল। ব্যাংকে কর্তৃত্ব নেই। কর্তৃত্ব না থাকলে অবাধে এসব হবে। এক ব্যাংকের পরিচালক আরেক ব্যাংকের টাকা নিচ্ছেন। টাকা নিয়ে হুন্ডির মাধ্যমে বিদেশ পাঠাচ্ছেন।’

তিনি বলেন, ‘দুদকের একটি অফিস কানাডায়, মালয়েশিয়ায়, অস্ট্রেলিয়ায় করুন। তাহলে দেখা যাবে কে কত টাকা নিয়েছেন। পিকে হালদার এত টাকা নিলেন। বাংলাদেশ ব্যাংক অডিট করলে চুরির করার সুযোগ থাকে না। অর্থমন্ত্রী মন্ত্রণালয়ের বসে কী করবেন। দোষ হয় মন্ত্রীর। অডিট করলে টাকা পাচার হয় না। নয় মিনিটের জন্য পিকে হালদারকে ধরতে পারেনি। তাহলে নয় ঘণ্টা আগে ধরতে পারলেন না কেন?’

জাতীয় পার্টির রওশন আরা মান্নান বলেন, ‘ব্যাংকিং খাত, আর্থিক প্রতিষ্ঠান নির্যাতিত এতিমদের মতো। দেখার কেউ নেই। লুটপাট হচ্ছে। দুর্নীতি হচ্ছে। কিছুই হয় না। শাস্তি হয় না।’ এসবের জবাবে অর্থমন্ত্রী আরও বলেন, ‘১২ বছরে ঋণের সুদহার ১২.১ ভাগ থেকে কমে ৭.৩ ভাগ হয়েছে।

এখন ব্যাংকের শাখা দ্বিগুণ হয়েছে। চাহিদা বেড়ে গেছে। গ্রামে গ্রামে ব্রাঞ্চ হয়েছে। দেশের মানুষ সেবা পাচ্ছেন। ২০০৬ সালে খেলাপি ঋণের হার ছিল ১৩.৬ শতাংশ। এখন আট শতাংশে নেমে এসেছে। ২০০৬ সালে টোটাল লোন আউটস্ট্যাডিং ছিল ১ লাখ ৫২ হাজার কোটি টাকা। যা এখন আটগুণ বৃদ্ধি পেয়ে ১১ লাখ ৮৭ হাজার কোটি টাকা হয়েছে।’

আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের মঞ্জুরি দাবির পরিপ্রেক্ষিতে জাতীয় পার্টি ও বিএনপির সংসদ সদস্যরা বিভিন্ন ছাঁটাই প্রস্তাব আনেন। ওই সব ছাঁটাই প্রস্তাব তোলার সময় বিরোধী সংসদ সদস্যরা বিদেশে টাকা পাচার, পুঁজিবাজারের অব্যবস্থাপনাসহ আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সমালোচনা করেন। এসব সমালোচনার জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘দেশের মানুষের কষ্টে অর্জিত টাকা বিদেশে চলে যাবে, আপনাদের যেমন লাগে, আমারও লাগে।

আমি অনিয়ম, বিশৃঙ্খলার বিরুদ্ধে। আমরা সবাই চাই, এগুলো বন্ধ করতে হবে। বন্ধ হচ্ছে। আগের মতো অবস্থা নেই। আগে সিমেন্টের নাম করে বালি আসতো। একটার নাম করে আরেকটা আসতো। আন্ডারইনভয়েসিং, ওভারইনভয়েসিং আগের মতো হয় না। একদম বন্ধ হয়ে গেছে বলবো না। পত্রপত্রিকায় দেখতে পাই না।’

মুস্তফা কামাল বলেন, ‘আগামী ছয় থেকে ১২ মাসের মধ্যে ১৫টি আইন দেখতে পারবেন। এগুলো বন্ধ করার জন্য। আমি নিজে জানি কীভাবে এগুলো হয়। কারা করে জানি না। অদক্ষ ব্যবস্থাপনা, ইনএফেকটিভ ম্যানেজমেন্টের জন্য এগুলো হয়। আমরা সংস্কারমুখী কাজ করবো। নতুন নতুন আইন করবো। ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো যাতে দায় নিয়ে কাজ করতে পারে, সে ব্যবস্থা করে দেব। কোনো টলারেন্স নেই এখানে। টাকা এখন দেশে আসে।’

পুঁজিবাজারের যুদ্ধ ছয় হাজার ঘরের সূচক: পুঁজিবাজারের যুদ্ধ চলছে ছয় হাজার সূচকে ঘিরে। ছয় হাজারের সূজকের ঘরে গত কয়েক দিন বড় লেনদেন হলেও এ জায়গা থেকে উন্নতি হতে পারছে না। গত রোববার পুঁজিবাজারে রেকর্ড পরিমান লেনদেন হলেও গতকাল সপ্তাহের দ্বিতীয় কার্যদিবসে সূচকের দরপতনে ছয় হাজারের নিচে চলে আসছে। এ জায়গায় সূচকের একটা মনতাস্তিক যুদ্ধ চলছে।

বিনিয়োগকারীদের প্রশ্ন কেন ছয় হাজারের সূচক বেড়ে বাজার ধরে রাখতে পারছে না। এদিকে এক দশকে সর্বোচ্চ লেনদেনের দিনই যে অস্বস্তি পুঁজিবাজারে দেখা দিয়েছিল, সেটি শঙ্কায় পরিণত হলো পরের দিন। প্রায় আড়াইশ শেয়ারের দরপতনে বড় ধরনের সংশোধন হলো পুঁজিবাজারে।

এপ্রিল থেকে টানা উত্থানে থাকা পুঁজিবাজার ছয় হাজার পয়েন্টের মাইলফলক ছুঁয়ে আসার পর পথ হারানোর দশা। উঠা নামার মধ্যে তিন কার্যদিবস ছয় হাজারের ওপরে থাকার পর আবার সূচক নেমে এল ছয় হাজারের কম। গত সপ্তাহের শুরুতে ছয় হাজার পয়েন্টে পৌঁছার পর বিনিয়োগকারীদের মধ্যে মনস্তাত্ত্বিক চাপ তৈরি হয়। সেখানে সূচক স্থিতিশীল না হওয়া, পাশাপাশি সংশোধনের দিন ব্যাপকভাবে লেনদেন বৃদ্ধির কারণে সেই চাপ আরও বাড়ল।

এ কারণে ২০১০ সালের মহাধসের পর রোববারের সর্বোচ্চ লেনদেনেও বিনিযোগকারীরা খুশি হতে পারেনি। তবে সোমবারের লেনদেনের শেষ দিকে সূচক কিছুটা ফিরে পাওয়া, আর পতনের দিন লেনদেন কমে যাওয়ায় তাও কিছুটা হলেও ইতিবাচকতা খুঁজছেন তোরা।

গত জানুয়ারি মাসেও সূচক পাঁচ হাজার ৯০৯ পয়েন্ট উঠার পর একমন অস্থিরতা দেখা দেয়। আর টাকা প্রায় তিন মাসের দর সংশোধনে এক পর্যায়ে তা নেমে আসে পাঁচ হাজার ৮৮ পয়েন্টে। পরে ৫ এপ্রিল লকডাউনের প্রথম দিন থেকে সেখান থেকে ঘুরে দাঁড়ায় পুঁজিবাজার। ৩০ মে সূচক দাঁড়ায় ছয় হাজার আট পয়েন্টে। কিন্তু পরের দুই দিন সূচক আবার ছয় হাজারের নিচে নেমে আসে।

এরপর তিন কার্যদিবস আবার ছয় হাজার পয়েন্টের ওপরে থাকার পর সোমবার এক দিনে ৬২ পয়েন্ট হারাল সূচক। ৫ এপ্রিল থেকে লকডাউন শুরু হওয়ার আগে আগে বাজারে লেনদেন স্থগিত হয়ে যাবে, এমন গুজবে গত ৩ এপ্রিল এর চেয়ে বেশি দরপতন দেখেছিল পুঁজিবাজার। রোববার পুঁজিবাজারে লেনদেন ছিল দুই হাজার ৬৬৯ কোটি টাকা। সেদিন সূচক পড়ে ১৫ পয়েন্ট। সোমবার লেনদেন শুরুর পর উঠানামা করতে থাকে সূচক। তবে বেলা একটার পর থেকে কেবল পড়েছেই। এক পর্যায়ে তা ৮৪ পয়েন্ট কমে যায়। তবে শেষ বেলায় এসে সূচক ২২ পয়েন্ট ফিরে পায় পুঁজিবাজার।

বিএসইসি’র নজরদারিতে ফরচুন সুজের লেনদেন: পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত কোম্পানি ফরচুন সুজের শেয়ার দও কোন কারণ ছাড়াই অস্বাভাবিকভাবে বাড়ছে। আর এ লেনদেনে কোন অনিয়ম হচ্ছে কি না তা নজরে রেখেছে পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) সার্ভেইলেন্স টিম। বিএসইসি সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

জানা যায়, গত চার কার্যদিবসে কোম্পানিটির শেয়ার দর ২১ টাকা ৬০ পয়সা থেকে টানা বেড়ে দাড়িয়েছে ৩১ টাকা ৪০ পয়সা। অর্থাৎ এ সময়ে ৭ টাকা বৃদ্ধি পেয়েছে আলোচিত কোম্পানিটির শেয়ার দর। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। এ বিষয়ে কোম্পানির পক্ষ থেকে ডিএসইকে জানানো হয়েছে, আমাদের কাছে কোন মূল্য সংবেদনশীল তথ্য নেই।

অভিযোগ ওঠেছে, টানা ৪ দিন প্রায় ৪০ শতাংশ আলোচিত কোম্পানিটির শেয়ার দর বৃদ্ধির পিছনে একটি চক্র সক্রিয় রয়েছে। এর আগেও এই চক্রটি কারসাজি করে এ কোম্পানির শেয়ার দর ৪০ টাকায় লেনদেন করে। সেখান থেকে শেয়ার দর নেমে আসে ১৫ টাকায়। এতে সাধারণ বিনিয়োগকারীরা ক্ষতির সম্মুখীন হয়। আবারও একইভাবে বিভিন্ন গুজব ছড়িয়ে শেয়ার দর বাড়াচ্ছে কারসাজি চক্রটি।

এদিকে সর্বশেষ কোম্পানিটি শেয়ার হোল্ডারদেরকে যে ডিভিডেন্ড দিয়েছে তা এর আগের বছরের তুলনায় অর্ধেক ছিল। অর্থাৎ সর্বশেষ বছরে কোম্পানিটি ১০ শতাংশ ডিভিডেন্ড দিয়েছিলো। এর মধ্যে ৫ শতাংশ ক্যাশ ও ৫ শতাংশ স্টক ডিভিডেন্ড। অপরদিকে ২০১৯ অর্থবছরে কোম্পানিটি শেয়ারহোল্ডারদের ২০ শতাংশ ডিভিডেন্ড দিয়েছিলো। এর মধ্যে ১৮ শতাংশ স্টক ও ২ শতাংশ ক্যাশ ডিভিডেন্ড।

বাজার বিশ্লেষণে দেখা গেছে, ডিএসইতে গত ১ জুন ফরচুন সুজের শেয়ার দর ছিল ২১ টাকা ৬০ পয়সা। গত রোববার কোম্পানিটির শেয়ার দর ২৮ টাকা ৬০ পয়সায় উন্নীত হয়। এদিকে গতকাল সোমবার কোম্পানিটির শেয়ার ও ইউনিট বিক্রি করার মতো কোনো বিনিয়োগকারী নেই। আজ লেনদেন চলাকালীন সময় কোম্পানিটির শেয়ার বিক্রেতা শূন্য হয়ে পড়েছে।

জানা গেছে, রোববার ফরচুন সুজের শেয়ারের ক্লোজিং দর ছিল ২৮ টাকা ৬০ পয়সা। আজ কোম্পানিটির শেয়ার লেনদেন শুরু হয়েছে ৩১ টাকা ৪০ পয়সায়। সর্বশেষ কোম্পানিটির শেয়ার লেনদেন হয়েছে ৩১ টাকা ৪০ পয়সা। অর্থাৎ আজ কোম্পানিটির শেয়ার দর ২ টাকা ৮০ পয়সা বা ৯ দশমিক ৭৯ শতাংশ বেড়েছে। এর আগে বৃহস্পতিবার ফরচুন সুজের শেয়ারের ক্লোজিং দর ছিল ২৬ টাকায়।

গতকাল রোববার সর্বশেষ কোম্পানিটির শেয়ার লেনদেন হয়েছে ২৮ টাকা ৬০ পয়সা। অর্থাৎ এদিন কোম্পানিটির শেয়ার দর ২ টাকা ৬০ পয়সা বা ১০ শতাংশ বেড়েছিলো। উল্লেখ্য, ফরচুন সুজ লিমিটেডের উদ্যোক্তা পরিচালকদের নিকট রয়েছে ৩০ দশমিক ৯৩ শতাংশ শেয়ার। এছাড়া প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের কাছে ১১ দশমিক ১৭ শতাংশ এবং সাধারন বিনিয়োগকারীদের কাছে রয়েছে ৫৭ দশমিক ৩০ শতাংশ শেয়ার।

পুঁজিবাজারে কালো টাকা সাদা করার সুযোগ চায় বিএমবিএ: পুঁজিবাজারকে আরও গতিশীল করতে ২০২১-২২ অর্থবছরের বাজেটে অপ্রদর্শিত অর্থ (কালো কাটা) বিনিয়োগের সুবিধা চেয়েছে বাংলাদেশ মার্চেন্ট ব্যাংকার্স অ্যাসোসিয়েশন (বিএমবিএ)। রোববার (৬ জুন) অর্থমন্ত্রীর কাছে পাঠানো প্রস্তাবে বিএমবিএ এসব সুপারিশ করে।

বিএমবিএ’র সভাপতি প্রেসিডেন্ট ছায়েদুর রহমান এ বিষয়ে বলেন, কালো টাকা বিনিয়োগের সুবিধা রাখা, তালিকাভুক্ত ও অ-তালিকাভুক্ত কোম্পানির করপোরেট করে ব্যবধান ন্যূনতম ১০ শতাংশ করাসহ চারটি প্রস্তাব পুনর্বিবেচনার জন্য অনুরোধ করেছি অর্থমন্ত্রীকে। তিনি বলেন, পুঁজিবাজারে কালো টাকা বিনিয়োগের সুবিধাসহ চারটি সুবিধা দেওয়া হলে দীর্ঘমেয়াদী সুফল পাওয়া যাবে। বাজার গতিশীল করতে ভূমিকা রাখবে।

পুঁজিবাজার থেকে দীর্ঘমেয়াদী সুফল পেতে বাজেটে পুর্নবিবেচনার জন্য অর্থমন্ত্রীর নিকট যেসব বিষয়ে প্রস্তাব জানানো হয়েছে সেগুলো মধ্যে- তালিকাভুক্ত ও অ-তালিকাভুক্ত কোম্পানিগুলোর মধ্যে করের পার্থক্য বাড়ানো। প্রস্তাবিত বাজেটে তালিকাভুক্ত এবং অ-তালিকাভুক্ত কোম্পানির করের হার ২.৫ শতাংশ হ্রাস করা হয়েছে। আলোচ্য করের ব্যবধান আরও বাড়ানো হলে ভালো পারফরম্যান্সের কোম্পানি পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হতে উৎসাহ পাবে। তাই তালিকাভুক্ত ও অ-তালিকাভুক্ত কোম্পানির করহারের ব্যবধান বাড়ানোর প্রস্তাব বিএমবিএ’র।

উৎস কর: কোম্পানিগুলোর লভ্যাংশ প্রদানের সময় তার উপর ২০ শতাংশ কর দেয়। অপরদিকে লভ্যাংশ বিতরণের সময় উৎস কর দেয় ১০ শতাংশ। এ দ্বৈত কর কমানোর মাধ্যমে বিনিয়োগকারীদের পুঁজিবাজারে দীর্ঘমেয়াদী বিনিয়োগ করতে উৎসাহিত করবে।

পুঁজিবাজারে কালো টাকা বিনিয়োগের সুযোগ: গত বছর সরকার বিভিন্ন খাতে বিনিয়োগের মাধ্যমে কালো টাকা সাদা করার সুযোগ দিয়েছে। ফলে এসব অর্থ পুঁজিবাজারে প্রবাহিত হয়েছে। যার ফলে বাজারে লেনদেন বেড়েছে। এবারও যদি সরকার পুঁজিবাজারে কালো টাকা বিনিয়োগের সুযোগ দেয় তাহলে বাজারে অর্থ প্রবাহ অব্যাহত থাকবে। এতে বাজারের গভীরতা বৃদ্ধি পাবে।

মার্চেন্ট ব্যাংকগুলো করের হার হ্রাস: পুঁজিবাজারের সঙ্গে সম্পৃক্ত অন্যান্য মধ্যস্থতাকারী প্রতিষ্ঠানের জন্য করহার ৩০ শতাংশ। কিন্তু মার্চেন্ট ব্যাংকগুলোর জন্য করহার ৩৭.৫০ শতাংশ। মার্চেন্ট ব্যাংকগুলোর জন্য করহার হ্রাস করে ৩০ শতাংশ করার মাধ্যমে পুঁজিবাজারে দীর্ঘমেয়াদী উন্নয়নের অংশীদার করার প্রস্তাব দিয়েছে বিএমবিএ।

ব্লক মার্কেটে ৪ কোম্পানির লেনদেনের শীর্ষে: সপ্তাহের দ্বিতীয় কার্যদিবস সোমবার (৭ জুন) ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) ব্লক মার্কেটে ৩২টি কোম্পানি লেনদেনে অংশ নিয়েছে। এসব কোম্পানির ৪০ কোটি ৪১ লাখ ৩৬ হাজার টাকার লেনদেন হয়েছে। ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। কোম্পানিগুলোর ৮৮ লাখ ৭১ হাজার ৮৩৮টি শেয়ার ৬৩ বার হাত বদল হয়েছে। এর মাধ্যমে কোম্পানিগুলোর ৪০ কোটি ৪১ লাখ ৩৬ হাজার টাকার লেনদেন হয়েছে। কোম্পানিগুলোর মধ্যে ৪ কোম্পানির বড় লেনদেন হয়েছে।

এরমধ্যে সবচেয়ে বেশি শেয়ার লেনদেন হয়েছে বেক্সিমকো লিমিটেডের। কোম্পানিটির শেয়ার লেনদেন হয়েছে ১২ কোটি ৮৯ লাখ ৯ হাজার টাকার। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ লেনদেন হয়েছে আল আরাফা ইসলামী ব্যাংকের ৬ কোটি ৪২ লাখ টাকার, তৃতীয় সর্বোচ্চ ৩ কোটি ৮১ লাখ ৫০ হাজার টাকার লেনদেন হয়েছে ফরচুন সুজের, চতুর্থ সর্বোচ্চ ৩ কোটি ৩৪ লাখ ১৮ হাজার টাকার লেনদেন হয়েছে বেক্সিমকো ফার্মার।

এছাড়া জিবিবি পাওয়ারের ২ কোটি ২০ হাজার টাকার,এসএস স্টিলের ১ কোটি ৯১ লাখ ২৫ হাজার টাকার,অলিম্পিক ইন্ডাস্ট্রিজের ১ কোটি ৭০ লাখ ৫০ হাজার টাকার,পাইওনিয়ার ইন্স্যুরেন্সের ১ কোটি ৬৩ লাখ ২১ হাজার টাকার, বীকন ফার্মার ১ কোটি ২৫ লাখ টাকার,ন্যাশশনাল হাউজিংয়ের ১ কোটি ১২ লাখ ৯ হাজার টাকার,

সালভো কেমিক্যালের ১ কোটি ৩ লাখ ৫০ হাজার টাকার,ডাচ বাংলা ব্যাংকের ৭৭ লাখ ৯০ হাজার টাকার, সাবমেরিন ক্যাবলের ৩৯ লাখ ৯৫ হাজার টাকার, ডেল্টা লাইফ ইন্স্যুরেন্সের ৩৬ লাখ ১৬ হাজার টাকার,এনআরবিসি ব্যাংকের ১৮ লাখ ৪৫ হাজার টাকার,এসকে ট্রিমসের ১৭ লাখ ৯১ হাজার টাকার,বিডি থাইয়ের ১৪ লাখ ৮২ হাজার টাকার,ন্যাশনাল পলিমারের ১৪ লাখ ১৪ হাজার টাকার,

পাওয়ার গ্রীডের ১২ লাখ ৫৩ হাজার টাকার,মেঘনা পেট্রোলিয়ামের ১০ লাখ ৭২ হাজার টাকার,স্কয়ার ফার্মার ১০ লাখ ৬৫ হাজার টাকার,নর্দান ইন্স্যুরেন্সের ১০ লাখ ১৮ হাজার টাকার,ম্যাকসন্স স্পিনিংয়ের ৮ লাখ ১৭ হাজার টাকার,ওয়ালটনের ৭ লাখ ৭৬ হাজার টাকার,সাউথইস্ট ব্যাংকের ৭ লাখ ৭০ হাজার টাকার, লংকাবাংলা ফাইন্যান্সের ৭ লাখ ৫২ হাজার টাকার,গ্লোবাল ইন্স্যুরেন্সের ৬ লাখ ৭০ হাজার টাকার,

প্রাইম টেক্সটাইলের ৬ লাখ ৬৩ হাজার টাকার,কাট্টালি টেক্সটাইলের ৫ লাখ ৫০ হাজার টাকার,বাংলাদেশ ন্যাশনাল ইন্স্যুরেন্সের ৫ লাখ ৩৬ হাজার টাকার, কর্ণফুলি ইন্স্যুরেন্সের ৫ লাখ ৬ হাজার টাকার,মার্কেনটাইল ইন্স্যুরেন্সের ৫ লাখ ১ হাজার টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে।

পুঁজিবাজারে হঠাৎ সূচকের বড় সংশোধন: পুঁজিবাজারে সপ্তাহের দ্বিতীয় কার্যদিবসে দীর্ঘ সাড়ে ১০ বছরের মধ্যে রেকর্ড লেনদেন পরিমান লেনদেন হলেও সপ্তাহের তৃতীয় কার্যদিবসে সূচকের বড় ধরনের কারেকশনে লেনদেন শেষ হয়েছে। এদিন পুঁজিবাজারের সব সূচক কমেছে। একই সাথে লেনদেনে অংশ নেয়া অধিকাংশ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট দর কমেছে। এর সাথে লেনদেন নেমেছে দুই হাজার কোটি টাকায়।

আজ ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ৬২.৩৯ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে ৫ হাজার ৯৭৫.৮৯ পয়েন্টে। ডিএসইর অপর সূচকগুলোর মধ্যে শরিয়াহ সূচক ৯.৮৮ পয়েন্ট এবং ডিএসই-৩০ সূচক ২৭.৪২ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে যথাক্রমে ১ হাজার ২৮৯.৪২ পয়েন্টে এবং ২ হাজার ১৯৫.১২ পয়েন্টে।

এদিন ডিএসইতে টাকার পরিমাণে লেনদেন ২ হাজার ৮৩ কোটি ২৮ লাখ টাকা টাকার লেনদেন হয়েছে। যা আগের দিন থেকে ৫৮৬ কোটি ১০ টাকা কম। আগের দিন লেনদেন হয়েছিল ২ হাজার ৬৬৯ কোটি ৩৮ লাখ টাকার।

ডিএসইতে আজ ৩৬৭টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে। এসব প্রতিষ্ঠানের মধ্যে শেয়ার দর বেড়েছে ৯৮টির বা ২৬.৭০ শতাংশের, শেয়ার দর কমেছে ২৪২টির বা ৬৫.৯৪ শতাংশের এবং ২৭টির বা ৭.৩৬ শতাংশের শেয়ার ও ইউনিট দর অপরিবর্তিত রয়েছে।

অপর পুঁজিবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সার্বিক সূচক সিএএসপিআই ১৯১.২৫ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে ১৭ হাজার ৩১৫.৭৬ পয়েন্টে। সিএসইতে আজ ৩০০টি প্রতিষ্ঠান লেনদেনে অংশ নিয়েছে। এসব প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ৮৬টির দর বেড়েছে, কমেছে ১৮৭টির আর ২৭টির দর অপরিবর্তিত রয়েছে। সিএসইতে ৯০ কোটি ৬৭ লাখ টাকার শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে।

সাউথবাংলা এগ্রিকালচার ব্যাংকের আইপিও আবেদন শুরু ৫ জুলাই: চতুর্থ প্রজন্মের বেসরকারি ব্যাংক সাউথ বাংলা এগ্রিকালচার অ্যান্ড কমার্স (এসবিএসি) ব্যাংক লিমিটেড প্রাথমিক গণ প্রস্তাবের (আইপিও) আবেদনপত্র ও চাঁদার অর্থ জমা নেওয়া শুরু হবে আগামী ৫ জুলাই থেকে এবং ১১ জুলাই পর্যন্ত চলবে। এসবিএসি ব্যাংক সূত্রে এই তথ্য জানা গেছে।

জানা যায়, আইপিওতে ব্যাংকটি অভিহিত মূল্য তথা ১০ টাকা দামে ১০ কোটি সাধারণ শেয়ার ইস্যু করবে। আর এর মাধ্যমে পুঁজিবাজার থেকে ১০০ কোটি টাকা সংগ্রহ করবে। পুঁজিবাজার থেকে ব্যাংকটি অর্থ উত্তোলন করে সরকারি সিকিউরিটিজ ক্রয় এবং আইপিও খরচ খাতে ব্যয় করবে।

২০১৩ সালে বাণিজ্যিকভাবে যাত্রা শুরু করা সাউথবাংলা এগ্রিকালচার অ্যান্ড কমার্স ব্যাংক গত ৯ মে আইপিওর অনুমোদন পায়। ওইদিন বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (এসইসি) তার ৭৭৩তম সভায় এ অনুমোদন দেয়।

সাউথবাংলা এগ্রিকালচার ব্যাংকের ২০২০ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর নিরীক্ষিত আর্থিক বিবরণী অনুযায়ী পুন:মূল্যায়ন ছাড়া নেট অ্যাসেটভ্যালু হয়েছে ১৩.১৮ টাকা। আর ওই বছরের ৯ মাসে ইপিএস হয়েছে ০.৯৪ টাকা। যা বিগত ৫ বছরের ভারিত গড় হারে হয়েছে ১.২৪ টাকা। আইপিওতে ব্যাংকটির ইস্যু ম্যানেজার হিসেবে দায়িত্ব পালন করছে আইসিবি ক্যাপিটাল ম্যানেজমেন্ট লিমিটেড।

দরপতন পুঁজিবাজারে আট কোম্পানির শেয়ার বিক্রেতা উধাও: পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত আট কোম্পানির শেয়ার ও ইউনিট বিক্রি করার মতো কোনো বিনিয়োগকারী নেই। আজ (০৭ জুন) লেনদেন চলাকালীন সময় কোম্পানিগুলোর শেয়ার বিক্রেতা শূন্য হয়ে পড়েছে। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) সূত্রে এ তথ্যজানা গেছে। কোম্পানিগুলোর হলো : ন্যাশনাল হাউজিং ফাইন্যান্স, আমান কটন ফাইবার্স, লুব-রেফ, আমান ফিড, ফরচুন সুজ, সালভো কেমিক্যাল, আনোয়ার গ্যালভানাইজিং এবং রিংশাইন টেক্সটাইল।

ন্যাশনাল হাউজিং ফাইন্যান্স: রোববার ন্যাশনাল হাউজিং ফাইন্যান্সের শেয়ারের ক্লোজিং দর ছিল ৪০ টাকায়। আজ কোম্পানিটির শেয়ার লেনদেন শুরু হয়েছে ৪১ টাকায়। সর্বশেষ কোম্পানিটির শেয়ার লেনদেন হয়েছে ৪৪ টাকায়। অর্থাৎ আজ কোম্পানিটির শেয়ার দর ৪ টাকা বা ১০ শতাংশ বেড়েছে।

লুব-রেফ : রোববার লুব-রেফের শেয়ারের ক্লোজিং দর ছিল ৪৩.৬০ টাকায়। আজ কোম্পানিটির শেয়ার লেনদেন শুরু হয়েছে ৪৪ টাকায়। সর্বশেষ কোম্পানিটির শেয়ার লেনদেন হয়েছে ৪৭.৯০ টাকায়। অর্থাৎ আজ কোম্পানিটির শেয়ার দর ৪.৩০ টাকা বা ৯.৮৬ শতাংশ বেড়েছে।

আমান কটন ফাইবার্স : আমান কটন ফাইবার্সের শেয়ারের ক্লোজিং দর রোববার ছিল ৩৯.৭০ টাকায়। আজ কোম্পানিটির শেয়ার লেনদেন শুরু হয়েছে ৩৯.২০ টাকায়। সর্বশেষ কোম্পানিটির শেয়ার লেনদেন হয়েছে ৪৩.৬০ টাকায়। অর্থাৎ আজ কোম্পানিটির শেয়ার দর ৩.৯০ টাকা বা ৯.৮২ শতাংশ বেড়েছে।

আমান ফিড : আমান ফিডের শেয়ারের ক্লোজিং দর রোববার ছিল ৩৯.৮০ টাকায়। আজ কোম্পানিটির শেয়ার লেনদেন শুরু হয়েছে ৩৯.৬০ টাকায়। সর্বশেষ কোম্পানিটির শেয়ার লেনদেন হয়েছে ৪৩.৭০ টাকায়। অর্থাৎ আজ কোম্পানিটির শেয়ার দর ৩.৯০ টাকা বা ৯.৭৯ শতাংশ বেড়েছে।

ফরচুন সুজ : রোববার ফরচুন সুজের শেয়ারের ক্লোজিং দর ছিল ২৮.৬০ টাকায়। আজ কোম্পানিটির শেয়ার লেনদেন শুরু হয়েছে ৩১.৪০ টাকায়। সর্বশেষ কোম্পানিটির শেয়ার লেনদেন হয়েছে ৩১.৪০ টাকায়। অর্থাৎ আজ কোম্পানিটির শেয়ার দর ২.৮০ টাকা বা ৯.৭৯ শতাংশ বেড়েছে।

সালভো কেমিক্যাল: রোববার সালভো কেমিক্যালের শেয়ারের ক্লোজিং দর ছিল ১৯.৪০ টাকায়। আজ কোম্পানিটির শেয়ার লেনদেন শুরু হয়েছে ১৯.৬০ টাকায়। সর্বশেষ কোম্পানিটির শেয়ার লেনদেন হয়েছে ২১.৩০ টাকায়। অর্থাৎ আজ কোম্পানিটির শেয়ার দর ১.৯০ টাকা বা ৯.৭৯ শতাংশ বেড়েছে।

আনোয়ার গ্যালভানাইজিং : রোববার আনোয়ার গ্যালভানাইজিংয়ের শেয়ারের ক্লোজিং দর ছিল ১৩৯.৫০ টাকায়। আজ কোম্পানিটির শেয়ার লেনদেন শুরু হয়েছে ১৪০.১০ টাকায়। সর্বশেষ কোম্পানিটির শেয়ার লেনদেন হয়েছে ১৫৩.৪০ টাকায়। অর্থাৎ আজ কোম্পানিটির শেয়ার দর ১৩.৯০ টাকা বা ৯.৯৬ শতাংশ বেড়েছে।

রিংশাইন টেক্সটাইল : রোববার রিংশাইন টেক্সটাইলের শেয়ারের ক্লোজিং দর ছিল ৭.৭০ টাকায়। আজ কোম্পানিটির শেয়ার লেনদেন শুরু হয়েছে ৭.৬০ টাকায়। সর্বশেষ কোম্পানিটির শেয়ার লেনদেন হয়েছে ৮.৪০ টাকায়। অর্থাৎ আজ কোম্পানিটির শেয়ার দর ০.৭০ টাকা বা ৯.০৯ শতাংশ বেড়েছে।

তিন সরকারি সংস্থার ৩৫৬ কোটি টাকার কাজ পেয়েছে বেক্সিমকো: পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত বেক্সিমকো লিমিটেডের তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগ সম্প্রতি ৩টি সরকারি সংস্থার কাছ থেকে মোট ৩৫৬ কোটি ৫০ লাখ টাকা মূল্যের একাধিক প্রকল্প বাস্তবায়নের দায়িত্ব পেয়েছে। আজ রোববার (৬ জুন) দোহাটেক নিউ মিডিয়া ও ডটগভ সল্যুশন্স এলএলসি, ইউএসএ-এর সঙ্গে যৌথভাবে বেক্সিমকো লিমিটেড ৪৭ কোটি ৫০ লাখ টাকা মূল্যের একটি প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের ‘বাস্তবায়ন পরিবীক্ষণ ও মূল্যায়ন বিভাগ’ এর সেন্ট্রাল প্রকিউরমেন্ট টেকনিক্যাল ইউনিটের (সিপিটিইউ) সঙ্গে চুক্তি স্বাক্ষর করেছে। চুক্তির আওতায় যৌথভাবে একটি আধুনিক পূর্ণাঙ্গ ইলেক্ট্রনিক প্রকল্প ব্যবস্থাপনা তথ্য সিস্টেম বা ই-পিএমআইএস তৈরি করবে এই তিন কোম্পানি।

এছাড়া ভারতের টেক মাহিন্দ্রা লিমিটেড ও বাংলাদেশের টেক ভ্যালে নেটওয়ার্কস লিমিটেডের সঙ্গে যৌথভাবে ২৬১ কোটি টাকা মূল্যের অনলাইন খাদ্য ভান্ডার ও বাজার নজরদারি সিস্টেম প্রস্তুতের কাজ পেয়েছে বেক্সিমকো। বাংলাদেশ সরকারের খাদ্য অধিদপ্তরের এই প্রকল্পে অর্থায়ন করছে বিশ্বব্যাংক। এ বিষয়ে শিগগিরই উভয় পক্ষের মধ্যে চুক্তি স্বাক্ষরিত হবে।

গত মাসে ৪৮ কোটি টাকা মূল্যে বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিলের দুইটি প্রকল্পের দায়িত্ব পেয়েছে বেক্সিমকো কম্পিউটার্স লিমিটেড। প্রথম প্রকল্পের অংশ হিসেবে মিলিটারি ইন্সটিটিউট অব সাইয়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজিতে (এমআইএসটি) একটি সাইবার রেঞ্জ প্রতিষ্ঠা করা হবে। দ্বিতীয় প্রকল্পের আওতায় বাংলাদেশ ইন্সটিটিউট অব অ্যাডমিনিস্ট্রেশন অ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট (বিয়াম) ফাউন্ডেশনে একটি তথ্যপ্রযুক্তি ল্যাব স্থাপন করা হবে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দক্ষ নেতৃত্বে সরকার দেশের ডিজিটাল রূপান্তরের যে যাত্রা শুরু করেছে, তাতে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ ও অবদান রাখতে বেক্সিমকোর অঙ্গীকারকে সাম্প্রতিক এসব সাফল্য শক্তিশালী করবে বলে এক বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি।

 

শেয়ার দর উত্থান-পতনের ক্ষেত্রে বিএসইসি’র নতুন সার্কিট ব্রেকার

admin amin  June 17, 2021

দেশ প্রতিক্ষণ, ঢাকা: : নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) তৃতীয় ধাপে এসে পুঁজিবাজার থেকে পুরোপুরি ফ্লোর প্রাইস (দর...

বিএসইসির আইন মানছে না সেন্ট্রাল ইন্স্যুরেন্স

admin amin  June 17, 2021

দেশ প্রতিক্ষণ, ঢাকা: শেয়ারবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) গ্রাচ্যুইটি ফান্ড নিয়ে আইন মানছে না সেন্ট্রাল ইন্স্যুরেন্স...

২১ বীমা কোম্পানিকে পুঁজিবাজারে আনতে বিএসইসির উদ্যোগ

admin amin  June 17, 2021

দেশ প্রতিক্ষণ, ঢাকা: অ-তালিকাভুক্ত ২১ বীমা কোম্পানিকে তালিকাভুক্ত করার জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে বীমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষকে (আইডিআরএ) অনুরোধ করেছে...

ডিএসই ছয় খাতের শেয়ারে লন্ডভন্ড!

admin amin  June 17, 2021

দেশ প্রতিক্ষণ, ঢাকা: পুঁজিবাজারে সপ্তাহের শেষ কর্মদিবসে উত্থান প্রবণতায় পুঁজিবাজারের লেনদেন শেষ হয়েছে। আজ প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই)...

বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতের ১৩ কোম্পানির মুনাফায় রমরমা

admin amin  June 17, 2021

দেশ প্রতিক্ষণ, ঢাকা: পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতের ২২টি কোম্পানির মধ্যে এ পর্যন্ত ১৯টি কোম্পানি ৩১ মার্চ, ২০২১ সমাপ্ত...

‘গ্লোবাল ইন্স্যুরেন্সের শ্রম আইন লঙ্ঘনের অভিযোগ’

admin amin  June 17, 2021

দেশ প্রতিক্ষণ, ঢাকা: পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত বীমা খাতের গ্লোবাল ইন্স্যুরেন্স করোনাকালীন সময়ে মুনাফা করলেও কর্মীদের জন্য কোনো ধরনের কার্যকর গ্রাচুইটি তহবিল...

চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের খামখেয়ালি, না কারসাজি!

admin amin  June 16, 2021

দেশ প্রতিক্ষণ, ঢাকা: পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত বীমা খাতের কোম্পানি ঢাকা ইন্স্যুরেন্সের শেয়ার কার কাছে কী পরিমাণে আছে, তার হিসাব প্রকাশের ক্ষেত্রে...

তিন কোম্পানির লভ্যাংশ সংক্রান্ত বোর্ড সভার তারিখ ঘোষণা

admin amin  June 16, 2021

দেশ প্রতিক্ষণ, ঢাকা: পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত দুই কোম্পানির লভ্যাংশ সংক্রান্ত বোর্ড সভার তারিখ ঘোষণা করছে। কোম্পানিটি দুটো হলো: পপুলার লাইফ ইন্স্যুরেন্স,...

বানকো সিকিউরিটিজের ১১ হাজার বিনিয়োগকারী পুঁজি নিয়ে দুশ্চিন্তায়

admin amin  June 16, 2021

দেশ প্রতিক্ষণ, ঢাকা: পুঁজিবাজারের সাড়ে ১১ হাজার বিনিয়োগকারী আবারও অনিশ্চয়তা ও দুশ্চিন্তায় পড়েছেন। এরা সবাই বানকো সিকিউরিটিজের নামের ব্রোকারেজ হাউসের...