দেশ প্রতিক্ষণ, ঢাকা: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, দেশের উন্নয়ন অগ্রযাত্রা কেউ থামাতে পারবে না। বুধবার (১২ জানুয়ারি) বেশ কয়েকটি উন্নয়ন প্রকল্প উদ্বোধন করতে গিয়ে তিনি এসব কথা বলেন। গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের বিভিন্ন প্রকল্পের আওতায় নবনির্মিত, ঢাকা এয়ারপোর্ট মহাসড়কে শহিদ রমিজ উদ্দীন ক্যান্টনমেন্ট স্কুল অ্যান্ড কলেজ সংলগ্ন পথচারী আন্ডারপাস, সিলেট শহর বাইপাস-গ্যারিসন লিংক-৪ মহাসড়ক, বালুখালী (কক্সবাজার) ও বান্দরবান সীমান্ত সংযোগ সড়ক এবং রাঙামাটি জেলার নানিয়ারচর চেংগী নদীর ওপর ৫০০ মিটার দীর্ঘ সেতুর উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।



এ সময় তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশেকে উন্নত দেশ হিসেবে গড়ে তুলবো। এজন‌্য আমরা প্রেক্ষিত পরিকল্পনা ২০৪১, ডেল্টা প্লান বাস্তবায়নে কাজ শুরু করেছি। বাংলাদেশের অগ্রযাত্রা কেউ থামাতে পারবে ন।’

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে, আরও এগিয়ে যাবে। অর্থনৈতিকভাবে আরও উন্নত হবে। আমরা শতভাগ বিদ্যুৎ পৌঁছে দিয়েছি। যোগাযোগ ব‌্যবস্থার সবক্ষেত্রে উন্নত করছি। এতে দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়ন আরও ত্বারান্তিব হবে। এ বছর বেশ কয়েকটি বড় প্রকল্প কাজ শেষ হবে। এগুলো দেশের অর্থনীতিতে আরও বেশি অবদান রাখবে।’ তিনি বলেন, ‘সাধারণ মানুষের প্রতি আমাদের যে প্রতিশ্রুতি দেশের উন্নয়ন তার উদাহরণ। বাংলাদেশ হবে বিশ্বের উন্নত সমৃদ্ধ সোনার বাংলাদেশ।’

এ সময় নবনির্মিত ঢাকা এয়ারপোর্ট মহাসড়কে শহিদ রমিজ উদ্দীন ক্যান্টনমেন্ট স্কুল অ্যান্ড কলেজ সংলগ্ন পথচারী আন্ডারপাস নিরাপদ সড়ক নিশ্চিত করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে প্রত‌্যাশা ব‌্যক্ত করেন প্রধানমন্ত্রী। একইসঙ্গে উদ্বোধন হওয়া সিলেট শহর বাইপাস-গ্যারিসন লিংক-৪ মহাসড়কের ফলে ওই এলাকার যোগাযোগ অনেক সহজ হবে বলেও মনে করেন তিনি।

পার্বত‌্য এলাকার উন্নয়নে সরকারের নেওয়া উন্নয়ন প্রকল্পের উদাহরণ দিয়ে তিনি বলেন, ‘পার্বত‌্য এলাকায় অশান্ত পরিবেশ ছিলো। ’৯৬ তে ক্ষমতায় এসে আমরা শান্তিচুক্তি করি। শান্তিচুক্তি একটা প্রতিশ্রুতি। সেটা আমরা বাস্তবায়ন করে যাচ্ছি। এশিয়ান হাইওয়ে এবং এশিয়ান রেলওয়ের সঙ্গে বাংলাদেশ সংযুক্ত হবে। আমি মনে করি, দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার সঙ্গে বাণিজ‌্য ও অর্থনৈতিক সম্পর্ক সম্প্রসারণের লক্ষ‌্যে আমরা যে কাজ করে যাচ্ছি এর অংশ হিসেবে বালুখালী (কক্সবাজার)-ধুমধুম (বান্দরবান) সীমান্ত সংযোগসড়ক নির্মানের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করি।’

পার্বত‌্য এলাকায় মানুষের সার্বিক উন্নয়নে রাঙামাটি জেলার নানিয়ারচর চেংগী নদীর ওপর ৫০০ মিটার দীর্ঘ সেতু নির্মানের কথা জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘এর ফলে সড়ক যোগাযোগ আরও উন্নত হবে এবং এলালাকার অর্থনৈতিক উন্নয়ন ত্বরান্তিত হবে। এর ফলে পার্বত‌্য এলাকার মানুষের দীর্ঘদিনের প্রত‌্যাশা পূরণ হলো। এর মাধ‌্যমে শান্তি চুক্তি বাস্তবায়নে আরও একধাপ আমরা এগিয়ে গেলাম।’

রাজধানীর যানজট নিরসনে সরকার কাজ করে যাচ্ছে জানিয়ে শেখ হাসিনা তার তার সরকারের সময়ে নেওয়া মেট্রোরেল, আধুনিক যোগাযোগ ব‌্যবস্থায় নেওয়া বিভিন্ন পদক্ষেপ তুলে ধরেন। তিনি বলেন, ‘এগুলোর কাজ শেষ হলে রাজধানীতে যোগাযোগ ব‌্যবস্থায় যুগান্তকারী পরিবর্তন আসবে।’

এ সময় সবাইকে ট্রাফিক আইন মেনে চলার আহ্বান জানান তিনি। দক্ষ চালক গড়তে ড্রাইভিং ট্রেনিংয়ে গুরুত্ব দেওয়ার কথাও জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী দুর্ঘটনা হলে কাউকে আইন হাতে না তুলে নেওয়ার আহ্বান জানান। দেশে করোনার নতুন ধরনের কথা উল্লেখ করে সবাইকে স্বাস্থ‌্যবিধি মেনে মাস্ক পড়ার আহ্বান জানান তিনি। এছাড়া, সরকারি নির্দেশনা মেনে চলার কথাও বলেন প্রধানমন্ত্রী।