দেশ প্রতিক্ষণ, ঢাকা: দেশের পুঁজিবাজার কোন পথে হাঁটছে, এ প্রশ্ন এখন লাখ লাখ বিনিয়োগকারীদের। গত কয়েক মাসের বাজারের অস্থির আচরনে বাজার নিয়ে প্রশ্ন তুলছেন বিনিয়োগকারীরা। তাছাড়া সরকার সহ নীতি নির্ধারকদের আন্তরিকতা থাকলেও কোন পুঁজিবাজার ঘুরে দাঁড়াতো পারছে না এ প্রশ্ন বিনিয়োগকারীদের। ফলে পুঁজিবাজারের আচরনে বিনিয়োগকারী সহ বাজার সংশ্লিষ্টরা শঙ্কিত।



সবার এখন একটা প্রশ্ন আবারও উল্টো পথে হাঁটছে দেশের পুঁজিবাজার। দেশের অর্থনীতির সব সূচক যখন ওপরের দিকে উঠছে ঠিক একই সময়ে নিচের দিকে নামছে দেশের প্রধান পুঁজিবাজারের সূচক। রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা, তালিকাভুক্ত কোম্পানিগুলোর আগের তুলনায় প্রবৃদ্ধি বাড়লেও কোম্পানিগুলোর শেয়ার দর কেন কমছে। কোন কারণ ছাড়াই যেন বাজারে মন্দাবস্থা আগের তুলনায় দীর্ঘস্থায়ী হচ্ছে।

ফলে পুঁজিবাজারের অস্থিতিশীল আচরণে পুঁজি নিয়ে শঙ্কায় বিনিয়োগকারীরা।বিনিয়োগকারীদের মাঝে প্রশ্ন জাগছে বাজার কি ফের ২০১০ সালের দিকে যাচ্ছে। কারণ কোন ওষুধ কাজে লাগছে না। বাজার আজ ভাল তো কাল খারাপ। দু-তিন কমলে একদিন নামমাত্র উত্থান, ফের পতনে লেনদেনের সমাপ্তি। এতোদিন অবশ্য এর কারণ সবারই অজানা থাকলেও এখন যোগ হয়েছে একের পর এক নতুন গুজব। কিছু দিন আগে গুজব ছিল ইউক্রেন-রাশিয়ার যুদ্ধ, এবার গুজব ২ শতাংশ সর্বনিন্ম অবস্থান থেকে ফের ১০ শতাংশ হচ্ছে। সম্প্রতি বিএসইসি এ বিষয় পরিস্কার করছে।

এটা দিবালোকের মতো সত্য যে, দেশের পুঁজিবাজারে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) চেয়ারম্যান শিবলী রুবাইয়াতুল ইসলামের নেতৃত্বাধীন কমিশন দায়িত্ব গ্রহণের পর বেশকিছু গুরুত্বপূর্ণ ইস্যুতে আমূল পরিবর্তন এসেছে।

পুঁজিবাজার উন্নয়নে বর্তমান কমিশন নিরলস কাজ করে যাচ্ছে এবং এ প্রক্রিয়া অব্যাহত থাকবে। তবে বাজারে কারা কোন কোম্পানির শেয়ার নিয়ে কিভাবে কারসাজি করছে, তাও এখন ওপেন সিক্রেট।

এদিকে টানা পতনে দিশেহারা বিনিয়োগকারীরা। এ পরিস্থিতিতে আজ সপ্তাহের তৃতীয় কার্যদিবসে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) লেনদেনের শেষ বেলায় কোন ক্রেতাই খুজে পায়নি পুঁজিবাজারের তালিকাভুক্ত ভিন্ন ভিন্ন খাতের মোট ৮৮ প্রতিষ্ঠান। ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

তথ্যমতে, প্রতিষ্ঠানগুলোর শেয়ার ক্রয়ের জন্য ক্রেতা পাওয়া যায়নি।প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে আমরা টেকনোলজিস লিমিটেডের শেয়ারের ক্লোজিং দর ছিল ৩৭.৪০ টাকায়। আজ কোম্পানিটির শেয়ার লেনদেন শুরু হয়েছে ৩৭.৭০ টাকায়। সর্বশেষ কোম্পানিটির শেয়ার লেনদেন হয়েছে ৩৬.৭০ টাকায়। এ হিসেবে কোম্পানিটির শেয়ার দর ০.৭০ টাকা বা ১.৮৭ শতাংশ কমেছে।

এবি ব্যাংক লিমিটেডের শেয়ারের ক্লোজিং দর ছিল ১০.৮০ টাকায়। আজ কোম্পানিটির শেয়ার লেনদেন শুরু হয়েছে ১০.৮০ টাকায়। সর্বশেষ কোম্পানিটির শেয়ার লেনদেন হয়েছে ১০.৬০ টাকায়। এ হিসেবে কোম্পানিটির শেয়ার দর ০.২০ টাকা বা ১.৮৫ শতাংশ কমেছে।

আমান কটন ফাইবার্স লিমিটেডের শেয়ারের ক্লোজিং দর ছিল ২৭.৮০ টাকায়। আজ কোম্পানিটির শেয়ার লেনদেন শুরু হয়েছে ২৮.৭০ টাকায়। সর্বশেষ কোম্পানিটির শেয়ার লেনদেন হয়েছে ২৭.৩০ টাকায়। এ হিসেবে কোম্পানিটির শেয়ার দর ০.৫০ টাকা বা ১.৮০ শতাংশ কমেছে।

একমি পেস্টিসাইড লিমিটেডের শেয়ারের ক্লোজিং দর ছিল ৩৪.৫০ টাকায়। আজ কোম্পানিটির শেয়ার লেনদেন শুরু হয়েছে ৩৪.৫০ টাকায়। সর্বশেষ কোম্পানিটির শেয়ার লেনদেন হয়েছে ৩৩.৯০ টাকায়। এ হিসেবে কোম্পানিটির শেয়ার দর ০.৬০ টাকা বা ১.৭৪ শতাংশ কমেছে।

ক্রেতা না পাওয়া অন্যান্য প্রতিষ্ঠানগুলো হলো- অগ্রণী ইন্সুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড, অলটেক্স ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড, এ্যাপেক্স ফুডস লিমিটেড, এপোলো ইস্পাত কমপ্লেক্স লিমিটেড, আরামিট সিমেন্ট লিমিটেড, এশিয়া ইন্সুরেন্স লিমিটেড, ব্যাংক এশিয়া, বে লিজিং এন্ড ইনভেস্টমেন্ট, বাংলাদেশ বিল্ডিং সিস্টেমস, বিডিকম অনলাইন, বাংলাদেশ ফাইন্যান্স, বিডি থাই ফুড অ্যান্ড বেভারেজ,

বাংলাদেশ ওয়েলডিং ইলেক্ট্রোডস, বীচ হ্যাচারি, বাংলাদেশ ইন্ডাস্ট্রিয়াল ফাইন্যান্স, সি এ পি এম বিডিবিএল মিউচুয়াল ফান্ড ওয়ান, সিএপিএম আইবিবিএল ইসলামী মিঊচ্যুয়াল ফান্ড, সেন্ট্রাল ফার্মাসিউটিক্যালস, সিটি জেনারেল ইন্সুরেন্স, কপারটেক ইন্ডাস্ট্রিজ, ডেলটা স্পিনার্স, দেশবন্ধু পলিমার,

ড্রাগন সোয়টার, ইস্টার্ন ইন্সুরেন্স, ইস্টার্ন লুব্রিকেন্টস, ইভিন্স টেক্সটাইল, ফ্যামিলিটেক্স, ফারইস্ট ইসলামী লাইফ ইন্সুরেন্স, ফু-ওয়াং ফুডস, জিবিবি পাওয়ার, জেমিনী সী ফুড, গ্লোবাল ইন্সুরেন্স, গ্রীন ডেল্টা মিউচুয়াল ফান্ড, জিএসপি ফাইন্যান্স, হামিদ ফেব্রিক্স, হা-ওয়েল টেক্সটাইলস, আইসিবি এএমসিএল ফার্স্ট অগ্রণী ব্যাংক মিউচ্যুয়াল ফান্ড, আইসিবি এএমসিএল সেকেন্ড মিউচুয়াল ফান্ড, আইসিবি ইসলামিক ব্যাংক,

আইসিবি এএমসিএল সোনালি ব্যাংক লিমিটেড ফার্স্ট মিউচুয়াল ফান্ড, ইন্টারন্যাশনাল লিজিং এ্যান্ড ফাইন্যান্স সার্ভিসেস, ইমাম বাটন, ইন্ট্রাকো রিফুয়েলিং, কাট্টালি টেক্সটাইল, তৌফিকা ফুডস অ্যান্ড লোভেল্লো আইস-ক্রিম, ম্যাকসন্স স্পিনিং, মালেক স্পিনিং, মেঘনা কনডেন্সড মিল্ক, মেঘনা পেট, মার্কেন্টাইল ব্যাংক, মেট্রো স্পিনিং,

মোজাফফর হোসেন, নিউ লাইন ক্লোথিংস, ন্যাশনাল হাউজিং, নিটল ইন্সুরেন্স, অলিম্পিক এক্সেসরিস, পেপার প্রসেসিং, প্যারামাউন্ট ইন্সুরেন্স, প্যাসিফিক ডেনিমস, পিপলস ইন্সুরেন্স, ফিনিক্স ফাইন্যান্স ফার্স্ট মিউচুয়াল ফান্ড, প্রিমিয়ার লিজিং, প্রাইম ফাইন্যান্স, প্রভাতী ইন্সুরেন্স, প্যারামাউন্ট টেক্সটাইল,

কাসেম ইন্ডাস্ট্রিস, রিজেন্ট টেক্সটাইল, রিং শাইন টেক্সটাইল, রতনপুর স্টিল, রূপালী ইন্সুরেন্স, সাইফ পাওয়ারটেক, সি পার্ল বিচ, এস ই এম এল লেকচার ইক্যুইটি ম্যানেজমেন্ট ফান্ড, সুরিদ ইন্ডাস্ট্রিজ, সিমটেক্স, এসকে ট্রিমস, সোনালী পেপার, সোনারগাঁ টেক্সটাইল, স্টান্ডার্ড ব্যাংক, তসরিফা ইন্ডান্ট্রিজ, ইউনিয়ন ক্যাপিটাল, উত্তরা ব্যাংক, ভ্যানগার্ড এ এম এল রূপালী ব্যাংক ব্যালান্সড ফান্ড, জাহিনটেক্স ইন্ডাস্ট্রিস লিমিটেড।