দেশ প্রতিক্ষণ, ঢাকা: পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতের ২৩টি কোম্পানির মধ্যে বিদেশিদের বিনিয়োগ রয়েছে ১৫টি কোম্পানিতে। এই ১৫টি কোম্পানির মধ্যে এপ্রিল মাসে পাঁচ কোম্পানিতে কমেছে তাদের বিনিয়োগ। বাকি ১০টি কোম্পাানির শেয়ারে তাদের বিনিয়োগ অপরিবর্তিত রয়েছে। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) সূত্রে এই তথ্য জানা গেছে। বিদেশিদের আগ্রহ কমার পাঁচ কোম্পানির মধ্যে রয়েছে: অ্যাসোসিয়েট অক্সিজেন, যমুনা অয়েল, লিন্ডে বিডি, পাওযার গ্রীড ও তিতাস গ্যাস লিমিটেড।



লিন্ডে বিডি: মার্চ মাসে কোম্পানিটিতে বিদেশি বিনিয়োগ ছিল ০.৬০ শতাংশ, যা এপ্রিল মাসে ০.৬০ শতাংশ কমে দাঁড়িয়েছে শুন্য শতাংশে। একই সময়ে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ ২৭.৮০ শতাংশে অপরিবর্তিত রয়েছে। তবে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের বিনিয়োগ বেড়েছে। এই সময়ে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের ১১.৬০ শতাংশ থেকে ০.৬০ শতাংশ বিনিয়োগ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১২.২০ শতাংশে।

যমুনা অয়েল: মার্চ মাসে কোম্পানিটিতে বিদেশি বিনিয়োগ ছিল ০.৪১ শতাংশ, যা এপ্রিল মাসে ০.০৫ শতাংশ কমে দাঁড়িয়েছে ০.৩৬ শতাংশে। একই সময়ে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ ২৮.০২ শতাংশ থেকে ০.১৩ শতাংশ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২৮.১৫ শতাংশে। আলোচ্য সময়ে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের বিনিয়োগ ৮.৫৯ শতাংশ থেকে ০.০৮ শতাংশ কমে দাঁড়িয়েছে ৮.৫১ শতাংশে।

অ্যাসোসিয়েট অক্সিজেন: মার্চ মাসে কোম্পানিটিতে বিদেশি বিনিয়োগ ছিল ০.১৩ শতাংশ, যা এপ্রিল মাসে ০.০২ শতাংশ কমে দাঁড়িয়েছে ০.১৫ শতাংশে। একই সময়ে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ ২৩.১৫ শতাংশ থেকে ০.০৬ শতাংশ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২৩.২১ শতাংশে। এছাড়াও, সাধারণ বিনিয়োগকারীদের বিনিয়োগ ৪৬.০৭ শতাংশ থেকে ০.০৮ শতাংশ কমে দাঁড়িয়েছে ৪৫.৯৯ শতাংশে।

পাওয়ার গ্রিড: মার্চ মাসে কোম্পানিটিতে বিদেশি বিনিয়োগ ছিল ০.৭০ শতাংশ, যা এপ্রিল মাসে ০.০১ শতাংশ কমে দাঁড়িয়েছে ০.৬৯ শতাংশে। একই সময়ে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ ১৫.০৮ শতাংশ থেকে ০.৩৯ শতাংশ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৫.৪৭ শতাংশে। এই সময়ে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের বিনিয়োগ ৯.২২ শতাংশ থেকে ০.৩৮ শতাংশ কমে দাঁড়িয়েছে ৮.৮৪ শতাংশে।

তিতাস গ্যাস: মার্চ মাসে কোম্পানিটিতে বিদেশি বিনিয়োগ ছিল ০.৫৬ শতাংশ, যা এপ্রিল মাসে ০.০১ শতাংশ কমে দাঁড়িয়েছে ০.৫৫ শতাংশে। একই সময়ে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ ১৪.৯৫ শতাংশ থেকে ০.০৬ শতাংশ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৫.০১ শতাংশে। এছাড়াও, সাধারণ বিনিয়োগকারীদের বিনিয়োগ ৯.৪৯ শতাংশ থেকে ০.০৫ শতাংশ কমে দাঁড়িয়েছে ৯.৪৪ শতাংশে।

বিদেশিদের বিনিয়োগ অপিরবর্তিত রয়েছে ১০টি কোম্পানির। এই দশ কোম্পানির মধ্যে খুলনা পাওয়ারের ০.১৮ শতাংশ, বাংলাদেশ ওয়েলডিং ইলেক্ট্রোডসের ০.৭২ শতাংশ, সিভিও পেট্রোকেমিক্যালের ০.২৬ শতাংশ, ঢাকা ইলেকট্রিক সাপ্লাই-ডেসকোর ০.০৬ শতাংশ, লুব-রেফের ০.০৬ শতাংশ, এমজেএল বাংলাদেশের ০.১৫ শতাংশ, মেঘনা পেট্রোলিয়ামের ০.১৬ শতাংশ, পদ্মা অয়েলের ০.৮৭ শতাংশ, সামিট পাওয়ারের ৩.৬৫ শতাংশ, ইউনাইটেড পাওয়ারের ০.০৩ শতাংশ বিদেশি বিনিয়োগ রয়েছে।